মঙ্গলবার, ২৭শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সব

Singapore
Corona Update

Confirmed Recovered Death
59,879 59,746 29

Bangladesh
Corona Update

Confirmed Recovered Death
543,717 492,059 8,356

মহামারী ও মনস্তত্ত্ব—১

অর্পিতা আচার্য | ০৯ মে ২০২১ | ১:১০ অপরাহ্ণ
মহামারী ও মনস্তত্ত্ব—১

Lord, have mercy on us!
“এই অনিশ্চিত দুনিয়া
এই জীবনের কামনামধুর আনন্দ
মৃত্যুর কাছে সবই তবে খেলা
এই খেলা থেকে কে পালাতে পারে?
শ্রান্ত আমি, আমাকে এবার মৃত্যু ডেকে নেবে
হে ঈশ্বর দয়া করো আমাদের!”

চারশ’ বছরের বেশি সময় আগে প্লেগ মহামারীতে অন্তত পনের হাজার মৃত্যু হয়েছিল লন্ডনে। ১৫৫৩ সালে লেখা থমাস ম্যাশের এই কবিতাটির প্রত্যেকটি স্ট্যাঞ্জা শেষ হয় `Lord, have mercy on us’ দিয়ে আর এই লাইনটি যেন বুকের ভেতর হাতুড়ির আঘাত মারে বারবার। প্যানডেমিকের ভয়াবহতার সামনে দাঁড়িয়ে সমস্ত সভ্যতাকে মনে হয় সময়ের ক্রীড়ণক। খেলনা ঘরের মতো ভেঙে যায় সাজিয়ে তোলা সুখদুঃখের সংসার, ভালোবাসার প্রতিশ্রম্নতির স্বপ্ন, শাসকের উন্মত্ত আস্ফালন, ভবিষ্যতের সাজিয়ে তোলা খোয়াব। অরণ্যে শিকার করে বেড়াতো যখন আদিম মানুষ তখনও কি ছিলো না সংক্রামক রোগ? কিন্তু প্রায় দশ হাজার বছর আগে থেকে যখন নিরাপত্তা খাদ্য ও সঙ্গীর প্রয়োজনে সমাজ সম্প্রদায় গড়ে থাকতে শুরু করলো তারা, তাদের পালিত পশুপাখিদের সঙ্গে নিয়ে, তখনই দেখা গেল একসঙ্গে একেকটি দলের মধ্যে কোনো একটা রোগ দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে লাগলো একটি নির্দিষ্ট সময়ে। ম্যালেরিয়া, টিউবারকিউলোসিস, ইনফ্লুয়েঞ্জা, গুটিবসন্ত … এক এক সময় এক একটি রোগের প্রকোপে উজাড় হয়ে যেতে লাগল বসতির পর বসতি। প্রতিরোধ প্রক্রিয়া সম্পর্কে সম্পূর্ণ অজ্ঞ, এইসব ভাইরাসের ব্যাপারে কিছুই না জানা প্রায় অন্ধ মানুষ, এক জায়গা থেকে এক জায়গায় ছড়াতে লাগলো সে সব অসুখ। এক হাজার বছর আগে পর্যন্ত তারা জানতোই না, এসব অসুখের জন্য দায়ী কোন মাইক্রোঅর্গানিজম। যত সভ্যতা ছড়িয়ে পড়তে লাগলো পৃথিবীর এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত, ব্যবসা—বাণিজ্যের স্বার্থে মানুষ ঘুরতে লাগল এক দেশ থেকে অন্য দেশ, শহর বানালো, উন্নত করলো যোগাযোগ ব্যবস্থা, ততই দেশ থেকে দেশান্তরে ছড়িয়ে পড়তে লাগলো এসব নরখাদক মাইক্রবসরা।

এখনকার মানুষ সম্পূর্ণভাবে এক জায়গা থেকে এক জায়গায় ভ্রমণশীল জীব। ভালোবাসে ঘনবসতিপূর্ণ শহরে আর অট্টালিকায় বাস করতে। তৈরি করেছে জনবহুল ঘিঞ্জি স্লাম এরিয়া। অল্প কয়েক ঘন্টার মধ্যে পৃথিবীর এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত ছড়িয়ে পড়ছে এসব মানববাহিত রোগ। বেশ কিছু রোগের ভ্যাকসিন তৈরি করতে সমর্থ হয়েছে মানুষ। কিন্তু প্রত্যেকটি উন্নত মানের ভ্যাকসিন তৈরি হতে সবসময়ই অনেক সময়ের দরকার। দরকার তার দীর্ঘস্থায়ী পার্শ্ব—প্রতিক্রিয়া পরীক্ষার। মারণব্যাধিগুলির ভ্যাকসিন তৈরি করতে চিকিৎসক গবেষকরা কত দীর্ঘ সময় নিয়ে তারপরই সঠিক ভ্যাকসিন বার করতে পেরেছেন আর নির্মূল করেছেন পৃথিবী থেকে এক একটি মারণ রোগ, তা আমরা ইতিহাস ঘাঁটলেই বুঝতে পারি। একটা নির্দিষ্ট এলাকার মধ্যে রোগ সীমায়িত থাকলে সহজে এর বিনাশ সম্ভব, কিন্তু আজকের গ্লোবালাইজেশনের যুগে তা তো স্বপ্ন মাত্র। সেই সঙ্গে রয়েছে মিডিয়ার প্রবল উত্থান, যা মুহূর্তে প্যানিক ছড়িয়ে দিতে পারে সারা পৃথিবীতে। অসংখ্য আক্রান্ত, ভীত, মানসিকভাবে পর্যুদস্ত মানুষের জন্য হাসপাতালের অভাব, চিকিৎসা কর্মীর অভাব, কর্মহীনতা, শিক্ষাব্যবস্থার প্রায় ভেঙ্গে পড়া, পরস্পর পরস্পরকে পরিহার করে চলা, মানসিক নিরাপত্তার অভাবে ভোগা, মৃত্যুভয়, আতঙ্ক, প্রিয়জনের মৃত্যু ও বিচ্ছেদের সঙ্গে লড়াই, ইত্যাদি নানাবিধ অশনিসংকেতে সমস্ত দুনিয়া ছড়িয়ে গেছে এই করোনা প্যানডেমিককে ঘিরে।

প্রথমদিকে মানুষ ভেবেছে সতর্ক হলে বোধহয় রোগ বিদায় নেবে পৃথিবী থেকে, তারপর ক্রমশ হতাশ হয়েছে, ক্রমশ হয়ে পড়েছে মরিয়া। এখন বিভিন্ন প্যাথলজিক্যাল ডিফেন্স মেকানিজম গ্রহণ করতে শুরু করেছে মানুষ। লুকিয়ে রাখছে আক্রান্ত হওয়ার খবর, দোষারোপ করছে অন্যদের, ‘যা হওয়ার হবে’ বা ‘আমার কিছুই হবে না’ এমন কিছু নেতিবাচক যুক্তি নিজের মনে তৈরি করে নিচ্ছে। এই এক বছরে পৃথিবী অতিক্রম করেছে সূর্য্যরে কক্ষপথ একবার। মানুষ কী শিক্ষা নিয়েছে, কী শিক্ষা নিয়েছে রাষ্ট্র, সমাজ ও নীতিনির্ধারকরা, সময় তার বিচার করবে হয়তো কোনো একদিন।

প্যানডেমিক আজ শুধুমাত্র একটি মেডিকেল সমস্যা নয়, এটি একটি সাইকোলজিকাল সমস্যা… একটি বিহেভিয়ারাল সমস্যা। প্যানডেমিক যেমন মানুষের আচরণ দিয়ে প্রভাবিত হয়, তেমনি আমাদের আচরণও কিন্তু প্যানডেমিক দিয়ে প্রভাবিত হয়। প্রত্যেকটি মহামারী তীব্র উদ্বেগ সৃষ্টি করে মানুষের মনে। সেই উদ্বেগ থেকে যেসব আচরণ তারা করে তা বিভিন্ন ভাবে তাকে যেমন প্রভাবিত করে, করে মহামারী পরিস্থিতিকেও। আমাদের ভুল বিশ্বাস, আমাদের কুসংস্কার, আমাদের ভীতি ও উদ্বেগ, মহামারী পরিস্থিতিতে আচরণকে সম্পূর্ণ পাল্টে দেয়। আর এভাবেই একটি মহামারীর পাশাপাশি আরেকটি ‘ছায়া মহামারী’ শুরু হয়ে যায়। শুরু হয় চিন্তার অপঘাত, যুক্তির হনন, আত্মহত্যা ও উদ্বেগের বিশ্বব্যাপী অভিঘাত। (চলবে)

লেখক: সহযোগী অধ্যাপক, কবি ও লেখক, আগরতলা, ভারত

Facebook Comments Box

সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের আরও খবর
আর্কাইভ
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১